বরিশালে ভূমিদস্যু শামসুর বিরুদ্ধে অন্যের জমি দখলের অভিযোগ,

সিটি নিউজ ডেস্ক: : বরিশাল: সন্ত্রাসী, ভূমিদস্যু, সরকারি জমি আত্মসাতকারী, জামাত-শিবির-বিএনপির নাশকতায় অর্থ যোগানদাতা শামসুল হক ওরফে শামসুর বিরুদ্ধে আবারও জমি দখলের অভিযোগ উঠেছে। গত ৭ নভেম্বর সকালে নগরীর ১১নং ওয়ার্ডের চাঁদমারি মাদ্রাসা সড়কের বিআইপি পিছনের গেট এলাকায় এই ঘটনা ঘটে।এ ঘটনায় জমির মালিক জাকির হোসেন কোতয়ালী মডেল থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন।অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, বরিশাল নগরীর ১১নং ওয়ার্ডের চাঁদমারি মাদ্রাসা সড়কের বিআইপি পিছনের গেট এলাকায় আলেকান্দা এলাকার জনৈক জাকির হোসেনের ৬ শতাংশ জমি রয়েছে। কিন্তু গত ৭ নভেম্বর সকালে হঠাৎ করেই চাঁদাবাজি মামলার আসামী, সন্ত্রাসী ও ভূমিদস্যু হিসেবে চিহ্নিত এবং একাধিক মামলার আসামী শামসুল হক ওরফে শামসু ওই জমিতে ঘর উত্তোলন করার চেষ্টা করে।এসময় খবর পেয়ে জমির মালিক জাকির হোসেন কোতয়ালী মডেল থানায় অভিযোগ দায়ের করলে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে কাজ বন্ধ করে দেন।

এসময় ওই ভূমিদস্যু শামসু পুলিশ দেখে পালিয়ে যায়। পরবর্তীতে থানা পুলিশ তাকে কাগজপত্র নিয়ে থানায় দেখা করতে বললেও তিনি কাগজ না দেখিয়ে বীরদর্পে ঘুড়ে বেড়াচ্ছে নগরীতে।এসময় স্থানীয়দের কাছে দম্ভক্তি করে বলেন, র‌্যাব-পুলিশ আমার কিছুই করতে পারবে না। আমার কাছে আগ্নেয়াস্ত্র রয়েছে। আমি তিন যুগ ধরে বরিশালে সন্ত্রাসী কার্যক্রম করছি। কেউ কিছু আমার করতে পারে নাই।অভিযোগ সূত্রে আরও জানা গেছে, বিগত সময়ে অন্যায়, অত্যাচার ও নির্যাতনের বিষয়ে র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন র‌্যাব-৮’র অধিনায়ক ও কোতয়ালী মডেল থানার ওসির কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন এক ভূক্তভোগী।

ঐ ভূমিদস্যু ও সন্ত্রাসী চক্র বিভিন্ন সময় বিআইপি পিছনের গেট এলাকার নিরীহ মানুষজনকে হামলা-মামলা করে হয়রানি করে আসছে। উল্লেখিত ভূমিদস্যু ও সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে কোতয়ালী থানায় একাধিক অভিযোগ, মামলা ও জিডি রয়েছে যার নং- ৬৯৬/২০১৫, ১০৯৬/২০১৫, ১১০৩/২০১৮ ও ৩৮৫/২০১৭। এডিএম কোর্টের মামলা নং- ৭৬/১৮, মোকাম বরিশাল বিজ্ঞ চীফ মেট্টোপলিটন ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে মামলা নং- ৩৬৭/২০১৪, মোকাম বরিশাল ১ম যুগ্ন জেলা জজ আদালত মামলা নং- ০৭/২০১৪, চাঁদাবাজী মামলার নং- ৮২/২০১৮। বর্তমানে চাঁদাবাজি মামলায় বরিশাল জজ কোর্টে স্বাক্ষ্য গ্রহণ চলছে। এছাড়া ১১ নং ওয়ার্ডে আ’লীগ অফিস ভাংচুর, স্টেডিয়াম কলোনীতে শ্লিলতাহানী ও জণপ্রিয় কাউন্সিলর ১৪নং ওয়ার্ডের মাহাবুবুল আলম মেহেদী বাড়ীতে প্রকাশ্যে নাইন এমএম নামের পিস্তল দিয়ে গুলি করা মামলার আসামী।

একই সাথে নগরীর ১০নং ওয়ার্ডের কেডিসি এলাকার বাংলাদেশ কৃষি কর্পোরেশন এর সরকারি জমি দখলসহ একাধীক জমি দখলের অভিযোগ রয়েছে ভূমিদস্যু ও সন্ত্রাসী শামসু বাহিনীর বিরুদ্ধে।এছাড়া জামায়াত, শিবির ও বিএনপির নাশকতায় অর্থ যোগান দিয়ে আসছে শামসুল হক এমনটাই বিভিন্ন মহলের দাবী। এদের বিরুদ্ধে একাধীক সময় কোতয়ালী মডেল থানায় অভিযোগ দিয়েছে ভুক্তভুগীরা। এদের অত্যাচারে গোটা বরিশালের কোন মানুষ শান্তিতে থাকতে পারে না। তাই ওই সন্ত্রাসী বাহিনীর হাত থেকে রক্ষা পেতে র‌্যাব এবং পুলিশসহ বিভিন্ন প্রশাসনিক দপ্তরে একাধিকবার লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন বলে সুত্রে জানা গেছে । তবে ওই ভুক্তভোগীর নাম প্রকাশ করতেও ভয় পাচ্ছেন। বর্তমানে আবারও সন্ত্রাসী সামসু ভুক্তভোগীকে বিভিন্ন ভাবে হত্যার হুমকি ধামকি দিয়ে আসছে। কিন্তু আদালতে নির্দেশ অমান্য করে এসব ভূমিদস্যু সামসু সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ে মহরা ও মামলার বাদীকে হুমকি দিচ্ছে অব্যাহত ভাবে।তারপরও আমাকে যেকোন সময় হত্যা বা মামলায় ফাঁসিয়ে দিবে বলে আশংকা প্রকাশ করেন বাদী। তাই আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে তার নিরাপত্তা ও সন্ত্রাসী বাহিনীর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানান লিখিত অভিযোগে।এ বিষয়ে বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মো: শাহাবুদ্দিন খান বিপিএম-বার জানান, তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।তবে এ ব্যাপারে অভিযুক্ত শামসুল হক সাংবাদিকদের সাথে কথা বলতে রাজি হন নি।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin