আবুল হাসনাত আবদুল্লাহর জন্মদিনে বরিশালে দোয়া-অনুষ্ঠান

সিটি নিউজ ডেস্ক:: পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তিচুক্তি বাস্তবায়ন ও পরিবীক্ষণ কমিটির প্রধান (মন্ত্রী পদমর্যাদা) ও সাংসদ আবুল হাসনাত আবদুল্লাহর ৭৬ তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে তাঁর দীর্ঘায়ু ও সুস্বাস্থ্য কামনা করে বরিশাল ব্যাপী দোআ ও মোনাজাতের আয়োজন করা হয়।আজ বৃহস্পতিবার জেলার সমস্ত উপজেলা, পৌরসভা এবং সিটি কর্পোরেশনের প্রতিটি ওয়ার্ডে এ আয়োজন সম্পন্ন হয় স্থানীয় পর্যায়ের আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দের উদ্যোগে।বিকেলে (বাদ আছর) বরিশাল নগরীর কালিবাড়ি রোড এলাকার সেরনিয়াবাত ভবনে স্বল্প পরিসরে আলোচনা সভা ও দোআ – মোনাজাতের আয়োজন করে জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগ। সেখানে প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. মোঃ ছাদেকুল আরেফিন।

এসময় তিনি বলেন, ‘স্বাধীনতা যুদ্ধে বরিশাল অঞ্চলের দায়িত্বে ছিলেন আবুল হাসনাত আব্দুল্লাহ।মুক্তিযুদ্ধে তাঁর অসাধারণ নেতৃত্ব আমাদেরকে দেশপ্রেমে উদ্ভুদ্ধ করে। স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা মাফিক পার্বত্য চট্টগ্রামে শান্তিচুক্তি বাস্তবায়নে ভূমিকা রাখেন এই মহান নেতা।কোন তৃতীয় পক্ষ ছাড়া এবং সামান্য রক্তপাতহীন এই চুক্তির রাজনৈতিক গুরুত্ব অপরিসীম। যে কারণে দক্ষিণাঞ্চলের আবুল হাসনাত আবদুল্লাহ আজ সমস্ত দেশের গৌরব’।
এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন, বরিশাল জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক তালুকদার মোঃ ইউনুস, মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এ কে এম জাহাঙ্গীর, সাধারণ সম্পাদক ও বরিশাল সিটি কর্পোরেশন মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ সহ মূলদল ও অঙ্গসংগঠনের নেতৃবৃন্দরা। এর আগে দুপুরে (বাদ জোহর) মহানগরীর আওতাধীন ত্রিশটি ওয়ার্ড ও ছয়টি থানার মসজিদ গুলোতে  স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীদের উদ্যোগে বিশেষ দোআর ব্যবস্থা করা হয়।
এদিকে জেলার আওতাধীন সকল উপজেলা ও পৌরসভাগুলোতে বিকেলে ও সন্ধ্যায় সেখানকার আওয়ামীলীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দের উদ্যোগে দোআ – মোনাজাতের সংবাদ পাওয়া গেছে। এছাড়া বরিশাল  নগরীর বিভিন্ন এতিমখানা ও মাদ্রাসায় ব্যক্তিগত উদ্যোগে  হাসনাত আবদুল্লাহর দীর্ঘায়িত জীবন কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন আমাদের সংবাদ দাতারা।
এর আগে বৃহস্পতিবার সকালে হাসনাত আবদুল্লাহর জন্মস্থান আগৈলঝাড়ায় বিভিন্ন ইউনিয়ন থেকে দলে দলে নেতাকর্মীরা আসতে থাকে। উপজেলা আওয়ামীলীগ কার্যালয়ে দলীয় নেতা কর্মীরা বিভিন্ন শোভাযাত্রা করে একত্রিত হন।
পরে সেখানে উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি সুনীল কুমার বাড়ৈর সভাপতিত্বে আবুল হাসনাত আবদুল্লাহর বিস্তৃত কর্মময় জীবনি ও উন্নয়ন কর্মকান্ড তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আবু সালেহ মোঃ লিটন।
প্রসংগত, আবুল হাসনাত আবদুল্লাহ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাগ্নে এবং বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ফুপাতো ভাই।তিনি ১৯৪৪ সালে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা প্রাক্তন আওয়ামী লীগ নেতা ও পানিসম্পদ মন্ত্রী আবদুর রব সেরনিয়াবাত, যাকে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট শেখ মুজিবুর রহমানের সাথে হত্যা করা হয়েছিল । সেদিন তার মা, সহোদর এবং জ্যেষ্ঠ সন্তানকেও হত্যা করেছিলো ঘাতকেরা।
হাসানাত আবদুল্লাহ ১৯৭৩ সালে বরিশাল উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন। তিনি অধুনালুপ্ত বরিশাল পৌরসভারও চেয়ারম্যান ছিলেন। ১৯৯১ ও ১৯৯৬ সালে বরিশাল-১ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। হাসনাত আবদুল্লাহ ১৯৯৬ থেকে ২০০০ পর্যন্ত জাতীয় সংসদের চীফ হুইপ ছিলেন।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin