আব্দুল কাদের এর মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক

সিটি নিউজ ডেস্ক:: অভিনেতা আব্দুল কাদের এর মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

শনিবার (২৬ ডিসেম্বর), প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে পাঠানো এক শোক বার্তায় শেখ হাসিনা বলেন, সাবলীল ও স্বতঃস্ফূর্ত অভিনয়ের মধ্য দিয়ে তিনি মানুষের হৃদয়ে বেঁচে থাকবেন।

প্রধানমন্ত্রী মরহুমের আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন এবং তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

শনিবার সকাল সাড়ে ৮টায়, ৬৯ বছর বয়সে রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন জনপ্রিয় অভিনেতা আব্দুল কাদের। দেশের জনপ্রিয় এ অভিনেতা ক্যান্সারে আক্রান্ত ছিলেন অনেকদিন ধরে। ক্যান্সার জটিল আকারে ছড়িয়ে পড়েছিলো তার সারা শরীরে। অবস্থা গুরুতর হওয়ায় জরুরি ভিত্তিতে আবদুল কাদেরকে গত ৮ ডিসেম্বর ভারতের চেন্নাইয়ের ভেলোর শহরের সিএমসি হাসপাতালে নেয়া হয়। গত ১৫ ডিসেম্বর এই অভিনেতার পরিবারকে ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার খবর দেন চেন্নাইয়ের চিকিৎসকেরা। সেখানে চিকিৎসার পর গত ২০ ডিসেম্বর দেশে ফেরার পর আব্দুল কাদেরকে রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বৃহস্পতিবার (২৪ ডিসেম্বর) দিবাগত রাত ১টার দিকে আব্দুল কাদেরের শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাকে আইসিইউতে নেওয়া হয়।

আব্দুল কাদের কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের লেখা ‘কোথাও কেউ নেই’ নাটকে ‘বদি’ চরিত্রে অভিনয় করে তুমুল জনপ্রিয়তা পান। এছাড়া তিনি হুমায়ূন আহমেদের ‘নক্ষত্রের রাত’ নাটকে দুলাভাই চরিত্রেও দারুণ প্রশংসিত হন। তিনি বহু নাটক-সিনেমা ও টিভি শোতে অভিনয় করে অগণিত মানুষের ভালোবাসা কুড়িয়েছেন। নাটকের পাশাপাশি তাকে নিয়মিত দেখা গেছে বিটিভির জনপ্রিয় ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান ‘ইত্যাদি’-তে। ‘রং নাম্বার’সহ কিছু সিনেমাতেও অভিনয়ের মুন্সিয়ানা দেখিয়েছেন আব্দুল কাদের। এছাড়া, বেশকিছু বিজ্ঞাপনচিত্রেও কাজ করেছিলেন তিনি।

এছাড়া, আবদুল কাদের বাংলাদেশ টেলিভিশনের নাট্যশিল্পী ও নাট্যকারদের একমাত্র সংগঠন টেলিভিশন নাট্যশিল্পী ও নাট্যকার সংসদ টেনাশিনাসের সহসভাপতি। তিনি নাটকের দল থিয়েটারের সদস্য। দলটির ৩০টি প্রযোজনায় এক হাজারের বেশি প্রদর্শনীতে অভিনয় করেছেন তিনি। মঞ্চে তিনি অভিনয় করেছেন ‘পায়ের আওয়াজ পাওয়া যায়’, ‘এখনো ক্রীতদাস’, ‘তোমরাই’, ‘স্পর্ধা’, ‘দুই বোন’, ‘মেরাজ ফকিরের মা’ নাটকগুলোয়। তাছাড়া আব্দুল কাদের বাটা বাংলাদেশের কর্মকর্তা হিসেবে কাজ করেছেন দীর্ঘদিন।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin