উজিরপুরে বখাটের ধর্ষণের শিকার ৫ম শ্রেণির ছাত্রীর সন্তান প্রসব

সিটি নিউজ ডেস্ক: বরিশালের উজিরপুরে বখাটের ধর্ষণের শিকার ৫ম শ্রেণির ছাত্রী সন্তান প্রসব করেছে। এ ঘটনা ধামাচাঁপা দিতে প্রভাবশালী এক নারী ১ লক্ষ টাকা চাদাঁ নিয়েছে। এ ঘটনায় এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।

ভুক্তভোগী ছাত্রী ও পরিবার সুত্রে জানা যায়- উপজেলার শোলক ইউনিয়নের বোহরকাঠী আদাবাড়ী গ্রামের গৌরাঙ্গ চন্দ্র বেপারীর বখাটে ছেলে নয়ন বেপারী(২০) একই বাড়ীর মৃত সুখরঞ্জন বেপারীর ৫ম শ্রেণিতে পড়ুয়া ছাত্রীকে বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে ১ বছর পূর্বে প্রেমের ফাঁদে ফেলেছে। এরপর ওই লম্পট প্রেমের সুবাদে ছাত্রীকে বিভিন্ন স্থানে ঘুরতে নিয়ে যায়। কিছুদিন তাদের মধ্যে শালীনতা বজায় থাকে। হঠাৎ একদিন ওই বখাটে স্কুল ছুটি শেষে ছাত্রীকে পুনরায় ঘুরতে যাওয়ার কথা বলে একটি নির্জন বাগানে নিয়ে যায়। সেখানে ছাত্রীর শরীরের স্পর্শকাতর স্থানে হাত দেয় এবং অবৈধ ভাবে যৌন সম্পর্ক করার জন্য ধস্তাধস্তি করে কিন্তু তাতে ওই নাবালিকা ছাত্রী রাজী হয়নি। এরপর বখাটে নয়ন ওই ছাত্রীকে ঘায়েল করার জন্য নতুন ফন্দি করে এবং বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে মুখে নামে মাত্র স্ত্রী সম্বোধন করে কাপড় চোপড়সহ কিছু উপহার দিয়ে তাকে বিভিন্ন স্থানে নিয়ে একাধিকবার ধর্ষণ করেছে। এতে ছাত্রী অন্তঃসত্তা হয়ে পড়ে। ২ মাস পূর্বে বিষয়টি এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে এ সুযোগকে কাজে লাগিয়ে একই বাড়ীর দুবাই প্রবাসী উত্তম বেপারীর প্রভাবশালী স্ত্রী রিতা বেপারী(৪০) ও তার ছেলে আকাশ বেপারী(২২) মিলে ধর্ষণের ঘটনা ধামাচাঁপা দিতে লম্পটের পরিবারের কাছ থেকে প্রশাসন ম্যানেজ করার কথা বলে নগদ ১ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। এর কিছু দিন পরে ওই ছাত্রীর সন্তান ভূমিষ্ট হলে চাদাঁবাজীর ঘটনা প্রকাশ হয়।

এদিকে নবজাতক শিশুকে কোথায় দত্তক দিবে এ নিয়ে উভয়ের মধ্যে বাগবিতন্ডা হয়। তবে পরিশেষে শিশুটিকে কার কাছে দত্তক দেয়া হয়েছে তা স্পষ্ট জানা যায়নি।

ভূক্তভোগী ছাত্রীর ভাই সুব্রত বেপারী সাংবাদিকদের জানান- আমার বোনের সর্বনাশকারীর আপনারা একটু বিচার করেন এবং বিষয়টি থানার ওসি সাহেবকে জানান। আমরা গরীব অসহায় হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করতে সাহস পাচ্ছি না। গরীবের জন্য কেউ নেই। আমাদের একই বাড়ীর নিকট আত্মীয় হয়েও রিতা বেপারী ও তার ছেলে আকাশ বেপারী ঘটনা ধামাচাঁপা দেয়ার জন্য লম্পট নয়নের বাবার কাছ থেকে ১ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়ে আমাদের থানায় মামলা করতে নিষেধ করেন এবং বিভিন্ন ভয়ভীতি ও হুমকী দেয়।

বাবা হারা ওই মেয়েটির সর্বনাশ করেছে বখাটে নয়ন বেপারী। তার কি হবে, সন্তান কাকে বাবার পরিচয় দেবে। তাহলে কি অবুঝ শিশুটি কোনদিন বাবার পরিচয় পাবেনা প্রশ্ন রাখেন এলাকাবাসী।

বখাটের বাবা গৌরাঙ্গ চন্দ্র জানান, ঘটনাটি শুনে কোন উপায়ান্তর না পেয়ে কিছু জমি বিক্রি করা ১ লক্ষ টাকা দিয়েছি এলাকার মোড়লদের।

অভিযুক্ত লম্পট ও চাদাঁবাজদের দ্রুত গ্রেফতার পূর্বক দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তির দাবী জানিয়ে উজিরপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ জিয়াউল আহসানসহ পুলিশের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করেন ভুক্তভোগী পরিবার।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin