বরিশালের আনসারী যেন আরেক মামুনুল: প্রবাসীর স্ত্রীকে বিয়ে-গর্ভপাত করানোর অভিযোগ

সিটি নিউজ ডেস্ক: পুলিশের হাতে আটক বহুল বিতর্কিত হেফাজত ইসলামের কেন্দ্রীয় মাওলানা মামুনুল হকের পদঙ্কই কী অনুসরণ বরিশাল ওলামালীগ নেতা মাহামুদুল হাসান আনসারী। পেশায় মসজিদের ইমাম এই ব্যক্তি প্রথম স্ত্রী-সস্তান থাকা সত্তে¡ও শহরের ১১ নং ওয়ার্ডের মাদ্রাসা গলির বাসিন্দা প্রবাসীর চল্লিশোর্ধ্ব স্ত্রীকে ফুঁসলিয়ে নামমাত্র বিয়ে করাসহ গর্ভপাত করানো এবং তার অর্থ স্বর্ণালঙ্কার হাতিয়ে নিয়েছে। সর্বশেষ শহরের অভ্যন্তরের একটি মূল্যবান জমি নিজের নামে নেওয়ার কৌশলে ব্যর্থ হয়ে নারীকে শারীরিক নির্যাতন করছে। এই ঘটনায় দুই সন্তানের জননী ওই নারী কোতয়ালি থানা পুলিশের কাছে বিচার চেয়ে পঞ্চাশোর্ধ্ব আনাসারীর বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ করেছেন।

আনসারী বরিশাল মহানগর ওলামালীগের সাধারণ সম্পাদক ও ১১ নং ওয়ার্ড বঙ্গবন্ধু কলোনী মসজিদের ইমাম।

প্রবাসীর স্ত্রীকে বিয়ে-গর্ভপাত করানোর অভিযোগ

নারী অভিযোগে উল্লেখ করেছেন, স্বামী প্রবাসে থাকাকালে ২০১৩ সালে তার বাসায় গিয়ে শিশু সন্তানদের মাহামুদুল হাসান আনসারী আরবি শেখাতেন। ওই সময় তাকে ফুঁসলানোসহ নানান ভাবে উত্যক্ত করতেন। একদিন একটি কাগজে স্বাক্ষর নিয়ে দাবি করে সে নারীকে বিয়ে করেছে। এবং একই বছরের ২ মার্চ এলাকার একটি বাসায় নারীর সাথে শারীরিক সম্পর্কে মিলিত হয়। এরপর থেকে বিভিন্ন সময়ে নারীর সাথে ওলামালীগ নেতা শারীরিক সম্পর্ক করে আসছিলেন।

অভিযোগ, একই বছরে তাকে ফুঁসলিয়ে ৫ ভরি স্বর্ণালঙ্কাসহ নগদ ৫ লাখ টাকা নিয়ে যায় আনসারী। এর পূর্বে নারীর পেটে দু দফা সন্তান আসলে ভুল বুঝিয়ে তা গর্ভপাত করান। সর্বশেষ একটি সন্তান গর্ভে আসলে সেটি গর্ভপাত করতে বললে নারী আপত্তি জানালে তাকে মারধর করাসহ নানান কায়দায় নির্যাতন শুরু করেন।

ব্লক থাকা রক্তনালীর বিরুদ্ধে কার্যকর পদ্ধতি
Cardio NRJ
নারী বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় মুঠোফোনে বরিশালটাইমসকে জানান, তাকে কাবিন ছাড়াই বিয়ে করেছে দাবি করে শারীরিক সম্পর্ক করে আসছিল আনসারী। এবং তার কাছ থেকে স্বর্ণালঙ্কাসহ নগদ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। এখন তার নামে শহরের রুপাতলীতে থাকা একখÐ জমি লিখে না দিলে সে আমাকে (নারী) এবং আমার পেটের সন্তানকে হত্যা করার হুমকি দেয়। এই ঘটনায় আমি কোতয়ালি মডেল থানা পুলিশের কাছে একটি অভিযোগ করেছি এবং তা এই ওয়ার্ডে দায়িত্বরত পুলিশ কর্মকর্তা রুমা আক্তার তদন্ত করছেন।

অভিযোগ তদন্ত করার বিষয়টি নিশ্চিত করে নারী পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, নারীকে অভিযোগটি এজাহার হিসেবে দিতে থানায় আসতে বলা হয়েছে। কিন্তু তিনি এখনও আসেননি। তবে যদ্দুর শুনেছি তিনি, ওই ব্যক্তির সাথে কাজী অফিসে গিয়ে কাবিন করেছেন। এবং নারীকে ভরণপোষণ দেওয়ার বিষয়টি আশ্বস্ত করেন।

এই প্রসঙ্গে জানতে নারীর সাথে পুনরায় যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, আনসারী চাপের মুখে পড়ে গতকাল তাকে একটি কাজী অফিসে নিয়ে যায় এবং কাবিন করছে। কিন্তু তার ভরণপোষণ বা থাকার কোনো ব্যবস্থা করে দেয়নি। বিষয়টি আর ২/১দিন দেখার পরে তিনি আবারও পুলিশের দ্বারস্থ হবেন বলে জানান, নারী।’

উল্লেখ্য, পুলিশের হাতে আটক বহুল বিতর্কিত হেফাজত ইসলামের কেন্দ্রীয় মাওলানা মামুনুল হক একই ভাবে বিয়ে করেন। এবং সেই নারীকে নিয়ে নারায়ণগঞ্জের একটি রেস্টহাউজে বেড়াতে গেলে তাকে স্থানীয়রা আটক করে। এসময় তিনি তার দ্বিতীয় স্ত্রী পরিচয় দেন। যা নিয়ে দেশে সর্বাত্মক তোলপাড় চলছে।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin