বরিশালে আন্তর্জাতিক মানের বিমানবন্দর প্রয়োজন-‍উপজেলা চেয়ারম্যান রিন্টু

সিটি নিউজ ডেস্ক: দক্ষিণাঞ্চলে ব্যাপক উন্নয়নমূলক কাজ চলছে। অবহেলিত এই জনপদে সরকারের একাধিক গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্প বাস্তবায়ন শেষের পথে। পদ্মা সেতু আর পায়রা সমুদ্রবন্দর পাল্টে দেবে গোটা দক্ষিণের চিত্র। সম্প্রতি কালের কণ্ঠকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে এ কথা বলেন বরিশাল চেম্বার অব কামার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি সাইদুর রহমান রিন্টু।

তিনি বলেন, পটুয়াখালীর পায়রা সমুদ্রবন্দর, সাবমেরিন কেবল ল্যান্ডিং স্টেশন, ঢাকা থেকে পায়রা পর্যন্ত রেলপথ, আইসিটি পার্ক, বরিশালে অর্থনৈতিক জোন, ভোলায় বিশেষ অর্থনৈতিক জোন, ভোলা-বরিশাল সেতুসহ নানা উন্নয়নমূলক প্রকল্প এগিয়ে চলছে। প্রকল্পগুলো সমাপ্ত হলে এই অঞ্চলে অর্থনৈতিক বিপ্লব ঘটবে। নির্মাণাধীন পদ্মা সেতুর কল্যাণে সরাসরি রেলপথ যাবে পটুয়াখালীর পায়রা সমুন্দবন্দরে। এর মাধ্যমে এখানে উচ্চমাত্রায় অর্থনৈতিক গতি সঞ্চার হবে। তিনি বলেন, পায়রা বন্দরটি নতুন শিল্প-কারখানা স্থাপনের সুযোগ সৃষ্টি করবে এবং রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ ও শিপ বিল্ডিং সেক্টরে নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টি করবে। বন্দরটি পূর্ণাঙ্গরূপে চালু হলে সবচেয়ে বেশি উপকৃত হবে বরিশাল, ভোলা ও পটুয়াখালী জেলার বাসিন্দারা। এই তিনটি জেলা দেশের অন্যতম অর্থনৈতিক কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হবে। পদ্মা সেতুকে কেন্দ্র করে বরিশালের অর্থনৈতিক অবস্থার ব্যাপক পরিবর্তন ঘটবে। এখানকার উৎপাদিত পণ্য দেশের চাহিদা মিটিয়ে রপ্তানির প্রচুর সম্ভাবনাও তৈরি হবে।

সাইদুর রহমান রিন্টু বলেন, দক্ষিণাঞ্চল একসময় ছিল শস্যভাণ্ডার। ধান-নদী-খালের এই বরিশাল এখনো মাছে ভরপুর। দেশের চাহিদা মিটিয়ে মাছ ও কৃষি পণ্য রপ্তানি করা হয়। কিন্তু এই দুটি সেক্টর সরকারি পর্যপ্ত বরাদ্দ থেকে বঞ্চিত হয়ে আসছে। আসছে বাজেটে পর্যাপ্ত বরাদ্দ রাখতে হবে, যাতে করে মৎস্য ও কৃষি প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চল গড়ে তোলা যায়। এতে করে প্রক্রিয়াজাত পণ্য রপ্তানির মাধ্যমে বেশি করে আয় করা সম্ভব হবে। এ ছাড়া বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তুলতে হবে। পাশাপাশি আন্তর্জাতিক মানের একটি বিমানবন্দর নির্মাণ করতে হবে। তাহলেই পিছিয়ে থাকা দক্ষিণাঞ্চলের অর্থনীতি এগিয়ে যাবে।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin