‘বিরল রোগে’ আক্রান্ত হয়ে ববি ছাত্রের মৃত্যু

সিটি নিউজ ডেস্ক: বিরল এক রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী আবদুল্লাহ আল মাহদী। তিনি ভূতত্ত্ব ও খনিবিদ্যা বিভাগের চতুর্থ বর্ষের ছাত্র ছিলেন। বৃহস্পতিবার ভোরে ঢাকার ফ্রেন্ডশিপ স্পেশালাইজড হসপিটাল অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। তিনি ‘স্টিভেন জনসন সিনড্রোম’ নামক রোগে আক্রান্ত ছিলেন বলে চিকিৎসকরা অভিমত দিয়েছেন। সহপাঠী বন্ধু মিসাল বিন সলিম জানান, আবদুল্লাহ আল মাহদী এক সপ্তাহ আগে জ্বরে আক্রান্ত হন।

জ্বর, চোখ লাল হওয়ার পাশাপাশি তার শরীরে ফোসকা পড়া শুরু হয়। স্থানীয় ডাক্তার তাকে ‘পক্স আক্রান্ত’ বলে শনাক্ত করে চিকিৎসা দেন। পরের দিন থেকে জ্বর বাড়তে শুরু করে, শরীরে ফোসকার পরিমাণ বেড়ে যায়। এ অবস্থায় হাসপাতালে নেয়া হলেও জ্বর কমেনি। সেখানেও ‘পক্স’ বলে অভিমত দেন জরুরি বিভাগের চিকিৎসক। জ্বর ১০৪ ডিগ্রি অব্যাহত থাকলে তাকে ঢাকায় স্থানান্তর করা হয়। অসুস্থ আবদুল্লাহ আল মাহদীকে বুধবার ঢাকায় বিভিন্ন হাসপাতালে চেষ্টা করে ভর্তি করা সম্ভব হয়নি। পরে গভীর রাতে ফ্রেন্ডশিপ স্পেশালাইজড হসপিটাল অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারের আইসিইউতে তাকে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসকরা পর্যবেক্ষণ করে জানান রোগী স্টিভেন জনসন সিনড্রোমে আক্রান্ত।

এটি বিরল রোগ। লক্ষণ অনেকটাই পক্সের মতো। তাই সহজে শনাক্ত করা যায় না। স্টিভেন জনসন সিনড্রোমে রোগীর ত্বক ও মিউকাস ঝিল্লি আক্রান্ত হয়। দেহের চামড়া, ঠোঁট, মুখ গহ্বর, কণ্ঠ, অন্ত্র, পায়ু, মূত্রনালি, চোখ ইত্যাদি সবকিছুই এই রোগে আক্রান্ত হতে পারে। শরীরের বিভিন্ন স্থানে ফোসকা পড়ে যায়। কয়েক দিনের মধ্যে বিভিন্ন অঙ্গ যেমন- কিডনি, ফুসফুস, যকৃত অকেজো হয়ে রোগী মারা যায়। শিক্ষার্থী আবদুল্লাহ আল মাহদীর বাড়ি মৌলভীবাজারে। তার পিতা জামালপুরের একটি সার কারখানায় কর্মরত। শিক্ষার্থী মাহদীর আকস্মিক মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. ছাদেকুল আরেফিন।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin