বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকের বিরুদ্ধে গাড়িচালককে মারধরের অভিযোগ

সিটি নিউজ ডেস্ক: বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিকতা বিভাগের এক সহকারী অধ্যাপকের বিরুদ্ধে ভাড়ায়চালিত প্রাইভেটকার চালককে মারধরের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় গত ২৬ মে বুধবার সকালে ভুক্তভোগী প্রাইভেটকার চালক বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর ও রেজিস্ট্রার বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

অভিযোগ সূত্র জানায়, গত ২০ মে বৃহস্পতিবার বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিকতা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মো. ইমরান হোসেন ঢাকা থেকে বরগুনা জেলার বেতাগী যাওয়ায় জন্য একটি প্রাইভেটকার ভাড়া করেন। কিন্তু পথিমধ্যে তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে প্রাইভেটকার চালক নাঈম মাহমুদ রিয়াজের সাথে তার কথা কাটাকাটি হয়।

পরে প্রাইভেটকারের চালক তাদের বেতাগী উপজেলার গন্তব্যে পৌঁছে দিয়েছেন। পরেরদিন পুনরায় যাত্রী নিয়ে ঢাকার উদ্দেশে রওনা দিয়ে যাওয়ার সময় খবর পেয়ে সহকারী অধ্যাপক মোঃ ইমরান হোসেন রাত আনুমানিক সাড়ে ১০ টার দিকে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে আরও লোকজন নিয়ে প্রাইভেটকার চালককে গাড়ি থেকে নামিয়ে অকথ্য ভাষায় গালাগালি ও নাকে-মুখে কিল ঘুষি মারতে থাকেন। এতে চালকের নাক-মুখ দিয়ে রক্ত বের হতে থাকে এবং তার সাথে থাকা নগদ ৩৫ হাজার টাকা ছিনিয়ে নিয়েছেন। এমনকি তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোন ও গাড়ি ভাঙচুর করেন। পরবর্তীতে গাড়িতে থাকা যাত্রীরা তাকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি করেন।

এ ব্যাপারে প্রাইভেটকার চালক নাঈম মাহমুদ রিয়াজ বলেন, আমি আহত থাকার কারণে অভিযোগ দায়ের করতে বিলম্ব হয়েছে। একটা তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যাপক মোঃ ইমরান হোসেন আমার ওপর হামলা করেন এবং আমার সাথে থাকা নগদ টাকা ছিনিয়ে নিয়ে যায়। তাঁর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি মহোদয়ের কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছি। এবং থানায় মামলা দায়ের করার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছি।

তবে সহকারী অধ্যাপক মো. ইমরান হোসেন এসব অভিযোগ অস্বীকার করে বলছেন, আমাকে ফাঁসানোর জন্য একটি মহল এসব ষড়যন্ত্র করছে।

এই বিষয়ে জানতে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মো. ছাদেকুল আরেফিনের মুঠোফোনে একাধিকবার কর দিলেও তিনি রিসিভ করেননি।’

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin