আজ শ্রদ্ধা ও ভালোবাসায় শহীদ জননীকে স্মরণ করবে বরিশালবাসী

সিটি নিউজ ডেস্ক: আজ সোমবার শহীদ জননী ও বীর মুক্তিযোদ্ধা সাহান আরা বেগমের প্রথম মৃত্যু বার্ষিকী। দিনটি পালনে জেলা আওয়ামী লীগ দুইদিন ব্যাপি ও মহানগর আওয়ামী লীগ তিনদিন ব্যাপি কর্মসুচী গ্রহন করেছে। শহীদ জননীর প্রথম মৃত্যু বার্ষিকী পালনে গতকাল শনিবার জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের এক প্রস্তুতি সভায় দুইদিন ব্যাপি কর্মসুচী গ্রহন করা হয়। নগরীর সোহেল চত্বরে দলীয় কার্যালয়ে বিকেলে ওই সভা হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মোহাম্মদ হোসেন চৌধুরী। উপস্থিত ছিলেন সাধারন সম্পাদক এ্যাড. তালুকদার মো. ইউনুস, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. মুনসুর আহমেদ, অধ্যাপক মোঃ জাকির হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক এ্যাড. মুজিবুর রহমান, মাহতাব হোসেন সুরুজ, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মোয়াজ্জেম হোসেন চুন্নু, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মনিরুল ইসলাম ছবি, জেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি মোঃ শাহজাহান হাওলাদার, জেলা কৃষক লীগের সভাপতি এ্যাড. সাইফুল আলম গিয়াস, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য এ্যাড. ফয়জুল হক ফয়েজ, উপ- দপ্তর সম্পাদক এ্যাড. কাইয়ুম খান কায়সার, উপ প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক এ্যাড. মিলন ভূইয়া, মহানগর কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ মিজানুর রহমান। সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ৭ জুন সকাল ৯ টায় নগরীর মুসলিম গোরস্থানে বীর মুক্তিযোদ্ধা সাহান আরা বেগম এর কবর জিয়ারত ও শ্রদ্ধা নিবেদন করা হবে। ৮ জুন বিকেল ৫ টায় বরিশাল জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে বীর মুক্তিযোদ্ধা সাহান আরা বেগমের রুহের মাগফিরাত কামনায় দোয়া মোনাজাত হবে। মহানগর আওয়ামী লীগের তিনদিন ব্যাপি কর্মসুচীর মধ্যে রয়েছে ৭ জুন সকাল সাতটায় দলীয় কার্যালয়ে দলীয় ও কালো পতাকা উত্তোলন, সকাল ১০টায় নগরীর ৩০ ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সহযোগি সংগঠনের নেতৃবৃন্দকে নিয়ে কবর জিয়ারত এবং পুস্পস্তবক অর্পন, ৭ জুন থেকে ৯ জুন পর্যন্ত কালোব্যাজ ধারন, ৭ থেকে ৯ জুন পর্যন্ত দলীয় কার্যালয়ে ফজর থেকে আসর পর্যন্ত কোর আন খতম, ৭ জুন নগরীর ৩০টি ওয়ার্ডে কোরআন খতম ও ধর্মীয় উপসনালয়ে দোয়া প্রার্থনা। ৯ জুন দলীয় কার্যালয়ে রুহের মাগফেরাত কামনায় দোয়া মোনাজাত।
মরহুম বীর মুক্তিযোদ্ধা সাহান আরা বেগম পার্বত্য শান্তিচূক্তি বাস্তবায়ন পরীবিক্ষণ কমিটির আহবায়ক (মন্ত্রী) ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহ এমপির সহধর্মিণী ও সিটি মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহ এবং ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্টের কালো রাতের শহীদ শিশু সুকান্ত বাবুর মা। তিনি হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত বছরের ৭ জুন মারা যান। পরদিন রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় নগরীর মুসলিম গোরস্থানে মরহুমাকে দাফন করা হয়। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট ভয়াল কালরাতের প্রত্যক্ষদর্শী ও গুলিবিদ্ধ সাহান আরা বেগম তিন পুত্র ও এক কন্যা সন্তানের জননী। কাল রাতে তিনি গুলিবিদ্ধ হয়ে অচেতন হয়ে পড়েছিলেন। খুনীরা তাকে মৃত ভেবে চলে যায়। কিন্তু পাষন্ড ঘাতকদের গুলিতে শহীদ হয়েছেন তার শিশু পুত্র সুকান্ত বাবু আব্দুল্লাহ। জীবদ্দশায় সাহান আরা বেগম ছিলেন বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি, কেন্দ্রীয় মহিলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব এবং আওয়ামী লীগের ত্যাগী ও নির্যাতিত নেতাকর্মীদের একমাত্র আশ্রয় ও ভরসারস্থল। শহীদ জননীর প্রথম মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষ্যে ইতিমধ্যেই শোকের ব্যানারে ছেয়ে গেছে নগরী। তার প্রথম মৃত্যুবার্ষিকীতে নগরীর দলমত নির্বিশেষে সর্বস্তরের মানুষের মনে ফুটে উঠেছে প্রিয়জন হারানোর বেদনা। মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে বরিশাল জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগসহ সকল অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনের নেতা কর্মীরা ছাড়াও ব্যক্তিগতভাবেও অনেকে দোয়া মোনাজাতের আয়োজন করবে।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin