বরিশাল ইনফ্রা পলিটেকনিক শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা

সিটি নিউজ ডেস্ক :: মায়ের কপালে চুমু খেয়ে পটুয়াখালীতে অয়ন দাস (২১) নামে এক কলেজছাত্র গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন। গতকাল রোববার (২০ জুন) বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে পটুয়াখালী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের নার্সেস কোয়ার্টারের দোতলায় নিজ বাসায় আত্মহত্যা করেন তিনি।

অয়ন দাস বরিশালের ইনফ্রা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র ছিলেন। রংপুরের কাউনিয়া উপজেলার মৃত শুকদেব কুমার দাসের ছেলে তিনি। তার মা অঞ্জনা রানী পটুয়াখালী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের সিনিয়র নার্স। সে সুবাদে হাসপাতালের নার্সেস কোয়ার্টারে থাকতেন তারা।

অঞ্জনা রানী বলেন, সারাদিন বাসায় শুয়ে ছিল অয়ন। বিকালে আমার কাছ থেকে ৫০ টাকা নিয়ে বাইরে যায়। কিছুক্ষণ বাসায় ফিরে আমার কপালে চুমু খেয়ে রুমে ঢুকে দরজা বন্ধ করে দেয়। অনেক ডাকাডাকি করলেও দরজা খোলেনি। পরে প্রতিবেশীদের ডাকলে দরজা ভেঙে রুমে ঢুকে দেখি ফ্যানে ঝুলছে অয়ন। তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

অয়ন দাসের বন্ধু সজল বলেন, কলেজের এক ছাত্রীর সঙ্গে তার প্রেমের সম্পর্ক ছিল। এ নিয়ে ছাত্রীর পরিবারে ঝামেলা হয়। পরে অন্যত্র বিয়ে ঠিক হওয়ার কথা অয়নকে জানায় ছাত্রী। এতে মানসিকভাবে ভেঙে পড়ে অয়ন। গত কয়েক দিন হাসপাতালে ভর্তি ছিল। কিছুটা সুস্থ হলে হাসপাতাল থেকে অয়নকে বাসায় নিয়ে যান তার মা। সকালে অয়ন ফোন করে আত্মহত্যা করবে বলে জানায়। কিন্তু সত্যিই আত্মহত্যা করবে, তা আমরা বুঝতে পারিনি।

পটুয়াখালী সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আখতার মোর্শেদ বলেন, পরিবার জানিয়েছে প্রেমে ব্যর্থ হয়ে ওই ছাত্র আত্মহত্যা করেছে। লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠানো হয়েছে। সুত্র,বরিশাল টাইমস

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin