বিসিসির প্লান শাখার পিয়ন বোখারীর বিরুদ্বে ঘুষ গ্রহণের অভিযোগ

বরিশাল সিটি কর্পোরেশন (বিসিসির) প্লানিং সেল শাখার কর্মচারী বুখারী ইসলামের বিরুদ্বে বাড়ির মালিককে জোর করে বাড়ির প্লাানের এল. ইউ. সি দেওয়া সহ অন্য কর্মকর্তাদের ম্যানেজ করার কথা বলে পর্যায়ক্রমে ৮০ হাজার টাকা ঘুষ নিয়ে আবার তদন্তের ভয়ে বিসিসিতে দেওয়া অভিযোগ উঠিয়ে নিতে ভয় ভীতি দেখিয়ে আবেদন পত্রে স্বাক্ষর নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

বাড়ির মালিক নগরীর ৩০নং ওয়ার্ড গনপাড়া এলাকার বাসীন্দা রতন কুমার দাসের সাথে এমন কর্মকান্ডে দেওয়ালে পিঠ ঠেকে যাওয়ায় শেষ উপায়ন্ত না পেয়ে বিসিসি মেয়রের কাছে গত ২৩ জুন তারিখ পিয়ন বোখারীর বিরুদ্বে একটি অভিযোগ দায়ের করেন।

অভিযোগে রতন কুমার দাস উল্লেখ করেন- তার বাড়ির প্লানের খটঈ সার্টিফিকেট বাবদ বোখারী প্রথমে ৪০হাজার টাকা নেয়।

বাড়ি নির্মান কাজ শুরু করতে বলে পিয়ন বুখারী। যদি কোন সমস্যা হয়, তবে সেটাও ম্যানেজ করবেন তিনি। সার্ভে রিপোটে নির্মান কাজ যাতে চলমান লেখা না আসে এজন্য বোখারী সার্ভেয়ার তাপসের কথা ২০ হাজার টাকা, ও নগর উন্নয়ন অধিদপ্তরের অফিসার বাইজিদের কথা বলে ২০ হাজার টাকা নেয়।

কিন্তু সার্ভে রিপোর্টে যখন নির্মান কাজ চলমান লেখা আসলে আমি বোখারীকে বলি এটা করবো ? তখন বোখারী বলে কোন সমস্যা নেই। আরো ৪০ হাজার টাকা দেন।

২০হাজার টাকা ড্রয়িং বাবদ আর বাকি ২০ হাজার প্লান মিটিং অফিসারকে দিতে হবে। যাতে কোন জরিমানা না হয়। এরকমের করে পিয়ন বোখারী সর্বমোট ৮০হাজার টাকা ঘুষ নিলেও তার বাড়ি নির্মানের প্লাান ফাইল এখনো আটকা আছে বলে জানান ভুক্তিভুগী রতন কুমার দাস।

বোখারীর নিকট ফাইল চাইলে তিনি নয়/ছয় শুরু করেন বলে জানান রতন কুমার দাস। বিষয়টি নিয়ে রতন কুমার দাস বিসিসির মেয়রের নিকট একটি অভিযোগ দাখিল করেন ভুক্তিভুগী রতন কুমার দাস। শুরু হয় তদন্ত। আর তদন্তে সকল কিছুর গোমর ফাসঁ হওয়ার ভয়ে এবং নিজেকে সেইভ সাইডে সাইডে নতুন প্রতারনার আশ্রয় নেন পিয়ন বোখারী ইসলাম।

রতন কুমার দাস গণ মাধ্যম, কর্মীদের কাছে আরো অভিযোগ করে বলেন- শাক দিয়ে মাছ ডাকতে গত ২৪ তারিখ পিয়ন বোখারী ইসলাম তার দলবল নিয়ে আমার বাড়িতে গিয়ে কৌশলগত ভাবে আমার ছেলে রবিন দাস কে নগর ভবনে এনে ২য় তলার প্রশাসনিক শাখার পাশের কক্ষে ডুকিয়ে ৬/৭ জন লোক বিভিন্ন রকম ভয়ভীতি দেখিয়ে বুখারী ইসলামকে নির্দোষ প্রমান করার জন্য তার কাছ থেকে জোর পূর্বক একটি আবেদন পত্রে স্বাক্ষর নেয় এবং আবেদনের রিসিভের একটি ফটো কপি হাতে ধরিয়ে দিয়ে রবিন দাসকে বিসিসি থেকে বের করে দেয়।

যার সিসিটিভি ফুটেজ দেখলেই প্রমান পাওয়া যাবে। এ ঘটনায় প্রতারক পিয়ন বোখারী ইসলামের বিরুদ্বে রতন কুমার দাস’য়ের হয়ে পূনরায় বিসিসি মেয়রের কাছে প্রতিকার চেয়ে অভিযোগ দেওয়া প্রস্তুতি নিচ্ছে বলে জানিয়েছেন রতন কুমার দাসের ছেলে রবীন দাস। তবে বিসিসির প্লানিং সেল শাখার পিয়ন বোখারী ইসলাম এধরনের টাকা নেওয়ার ব্যাপারে অস্বিকার করেন। তবে আমি যেন ফেসেঁ না যাই তাই আমার পদ্বতি অনুযায়ী আমি গুছিয়ে নিয়েছি।

বিসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) সাক্ষাৎকারে জানান- আমি এই মূহুর্তে বরিশালের বাহিরে আছি।

সোমবার বরিশালে এসে পিয়ন বোখারী ইসলামের বিরুদ্বে ঘুষের টাকা নেওয় সহ অন্নান্য অভিযোগের বিষয়ট খতিয়ে দেখে তদন্ত সাপেক্ষ ব্যাবস্থা গ্রহন করার কথা জানিয়েছেন তিনি। ভুক্তিভুগী রবীন দাস মনে করেন, বরিশাল সিটি মেয়র সেরনিয়াবাদ সাদিক আব্দুল্লাহ যদি আমার এই আর্তনাদ যদি শুনে যথাযথা ব্যাবস্থা গ্রহন করেন তাহলে আমি আজীবন তার প্রতি কৃতজ্ঞ থাকবো।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin