বরিশালে ছাত্রলীগ নেতাদের বাধায় বন্ধ পানির পাইপলাইন স্থাপন

সিটি নিউজ ডেস্ক:: বরিশালের মুলাদী পৌর শহরে সুপেয় পানি সরবরাহের পাইপলাইন স্থাপনের কাজ বন্ধ করে দিয়েছেন উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি জুবায়ের আহমেদ জুয়েল ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান ইমাম। তারা পাইপ স্থাপনের কাজ বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছেন বলে অভিযোগ করেছেন ঠিকাদার কামাল হোসেন। বিষয়টি তিনি মুলাদী পৌরসভাসহ সংশ্নিষ্ট মহলে লিখিতভাবে জানিয়েছেন। দেশের ২৩টি পৌরসভায় সুপেয় পানি সরবরাহ ও স্যানিটেশন প্রকল্পের আওতায় মুলাদী পৌর শহরে ৫ কোটি ৩৪ লাখ টাকা ব্যয়ে সাড়ে ১৫ কিলোমিটার পাইপলাইন স্থাপনের কাজ শুরু করেছেন বরগুনা জেলার ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স কামাল এন্টারপ্রাইজ। প্রতিষ্ঠানটির স্বত্বাধিকারী কামাল হোসেন জানান, শ্রমিকরা ২৫ জুন মুলাদী পৌর এলাকায় পাইপলাইন স্থাপনের কাজ শুরু করেছেন। কাজ শুরুর পর থেকেই উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি জুবায়ের আহমেদ জুয়েল ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান ইমাম শ্রমিক ও তদারকিতে থাকা লোকজনদের নানাভাবে হয়রানি শুরু করেন।

২৮ জুন ৫ নম্বর ওয়ার্ডে উপজেলা চেয়ারম্যান তারিকুল হাসান মিঠু খানের বাড়ির সামনে পাইপলাইন স্থাপনের কাজ চলার সময় ছাত্রলীগ নেতা জুবায়ের আহমেদ জুয়েল এবং মেহেদী হাসান ইমাম এসে শ্রমিক ও লোকজনদের কাজ বন্ধ রাখতে বলেন। দুই ছাত্রলীগ নেতা বলেন, তাদের সঙ্গে সমন্বয় না করে একটি পাইপও স্থাপন করা যাবে না। ওই দুই ছাত্রলীগ নেতা পরদিন পুনরায় কাজের তদারকির দায়িত্বে থাকা ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের প্রকৌশলী রুবেল হোসেনকে অকথ্য ভাষায় গালাগাল করে কাজ বন্ধ করে দেন। ঠিকাদার কামাল হোসেন বলেন, এতে পাইপ স্থাপন কাজে নিযুক্ত শ্রমিকরা ভীতসন্ত্রস্ত হয়ে পড়ে কাজ বন্ধ করে দেন। বিষয়টি মুলাদী পৌর মেয়র শফিকউজ্জামান রুবেলকে অবহিত করা হয়েছে। তিনি আইনের আশ্রয় নিতে বলেছেন।

মুলাদী পৌরসভার মেয়র শফিকউজ্জামান রুবেল বিষয়টি সম্পর্কে বলেন, পাইপলাইন স্থাপনের কাজ বন্ধ করে দেওয়ার বিষয়টি ঠিকাদার তাকে মোবাইল ফোনে জানিয়েছেন। তিনি ঠিকাদারকে আইনের আশ্রয় নিতে পরমর্শ দিয়েছেন।

অভিযুক্ত মুলাদী উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি জুবায়ের আহমেদ জুয়েল জানান, প্রকল্পের কাজটি মানসম্মত হচ্ছে কিনা তা জানার জন্য উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তারিকুল হাসান মিঠু খান ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে বসতে চেয়েছেন। তাদের কাগজপত্র নিয়ে উপজেলা চেয়ারম্যানের সঙ্গে দেখা করার জন্য বলা হয়েছে মাত্র। কাজ বন্ধ করে দেওয়ার অভিযোগ অসত্য বলে দাবি করেছেন জুবায়ের।

উপজেলা চেয়ারম্যান তারিকুল হাসান মিঠু খান জানান, তিনি জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের মুলাদী উপজেলা প্রকৌশলীকে ডেকে ভালো মানের পাইপ স্থাপনের জন্য বলেছেন, যাতে ভবিষ্যতে পৌরবাসীর দুর্ভোগ না হয়। এর বেশি কিছু ঘটেনি।সুত্র,সমকাল

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin