স্বাস্থ্য বিধি মেনে লঞ্চ চলাচলের অনুমতি চেয়েছে মালিকরা

জীবন জীবিকার জন্য যাত্রীবাহী লঞ্চ চলাচলের জন্য সরকারের কাছে অনুমতি চেয়েছে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীন নৌ চলাচল (যাপ) সংস্থার নেতৃবৃন্দ। যাপ এর আয়োজনের লঞ্চ মালিকদের জুম কনফারেন্সে এ দাবী করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার রাতে অনুষ্ঠিত জুম কনফারেন্সে নেতৃবৃন্দ দাবী জানায়, ঢাকা নৌ-বন্দর থেকে চাদপুরসহ দেশের দক্ষিন-পশ্চিমাঞ্চলের ৪১টি রুটে ২২০টি লঞ্চ চলাচল করে। ঈদের সময় দক্ষিন-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার যাত্রী পারপারে ২২০ টি লঞ্চ দিয়ে হিমশিম খেতে হয়। সেখানে মাওয়া-আরিচা ঘাটে কয়েকটি ফেরি চালুর মাধ্যমে যাত্রী পারাপার করা হচ্ছে। এ কারনে যেখানে যাত্রীরা লঞ্চে ৪ থেকে ৫০০ টাকায় গন্তব্যে পৌছতে পারতো। সেখানে এখন ২ থেকে ৩০০০ হাজার টাকা ব্যয় করেও ভোগান্তির মাধ্যমে গন্তব্যে যাচ্ছে। কিন্তু করোনার সংক্রমনের কারনে গত এপ্রিল থেকে টানা দুই মাস ধরে নৌ-চলাচল বন্ধ রাখা হয়। এরপর চালু করা হলেও একমাস যেতে না যেতেই বন্ধ করা হয়েছে। এতে বিপাকে পড়েছে নৌযান মালিক শ্রমিকরা। গত দেড় বছর ধরে বিভিন্ন সময়ে নৌ-যান চলাচল বন্ধ রাখলেও এর বিপরীতে সরকারের পক্ষ হতে প্রনোদনা স্বরূপ কোনো অর্থ সহযোগিতা পায়নি নৌ-যান মালিক-শ্রমিকরা। এমতাবস্থায় অর্থ সংকটে মানবেতর জীবন পার করছেন নৌ-যান মালিক- শ্রমিকরা। একদিকে নদীতে মালিকদের কোটি কোটি টাকার সম্পদ নষ্ট হচ্ছে। এছাড়াও অন্য পেশায় চলে যাচ্ছে শ্রমিকরা। এতে ভবিষ্যতে শ্রমিক সংকট সহ নৌযান নিয়ে নানা সমস্যায় পড়তে হবে। তাই জীবন জীবিকার জন্য যাত্রীবাহী লঞ্চ চলাচলের জন্য সরকারের কাছে অনুমতি চাওয়া হয়েছে। খবর বিজ্ঞপ্তির

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin