বরিশালে এয়ারপোর্ট থানার পুলিশ সদস্যকে শ্রমিকের মারধর

সিটি নিউজ ডেস্ক:: বরিশালে শ্রমিকদের বাস ধর্মঘটে ব্যবহৃত ব্যারিকেড সরানো নিয়ে পুলিশ ও শ্রমিকদের মধ্যে সংঘর্ষ ও ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এ সময় ফারুখ নামে এক পুলিশ কনস্টেবল ব্যাপক মারধরের শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। শুক্রবার দুপুর ১টার দিকে বরিশাল কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল নথুল্লাবাদে এ ঘটনা ঘটে। এতে ওই পুলিশ সদস্যসহ তিনজন আহত হয়েছেন। 

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সিভিলে থাকা বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের এয়ারপোর্ট থানায় কর্মরত কনস্টেবল ফারুখ বাস ধর্মঘটে ব্যবহৃত ব্যারিকেড সরানোর চেষ্টা করেন। এ নিয়ে শ্রমিকদের সঙ্গে ফারুখসহ কয়েকজন পুলিশ সদস্যের হাতাহাতি হয়। পরে পুলিশ সদস্যরা জুয়েল নামে এক শ্রমিককে মারধর করলে সংঘর্ষ বাধে এবং ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়। 

এতে পুলিশ সদস্য ফারুখ, বাস শ্রমিক জুয়েল ও রাহাত আহত হন। পরে পুলিশ সদস্যরা টার্মিনালের পাশেই থাকা জালাল আহম্মেদ পুলিশ বক্সে গিয়ে আশ্রয় নেন। কিছুক্ষণ পর বিক্ষুব্ধ শ্রমিকদের শান্ত করেন শ্রমিক নেতারা।

বাস শ্রমিক জুয়েল বলেন, যেহানে আমাগো ধর্মঘট চলতে আছে সেইহানে উনি আইসা আমাগো ব্যারিকেড উঠাইছে। উনি পুলিশ কিনা তাও তো বুঝি নাই। গোল গলার একটা টি-শার্ট পইরা উনি হুমকি-ধামকি দেতেছিল। আমরা এইটার প্রতিবাদ করলে আমাগো গালিগালাজ করে আর মারেও। এই নিয়া একটু সমস্যা হইছে।

পুলিশ কনস্টেবল মো. ফারুখ বলেন, আমি খাবার নিয়ে থানার দিকে যাচ্ছিলাম। এ সময় কিছু উচ্ছৃঙ্খল লোকজন আমার ওপর চড়াও হয়। এরপর আমাকে ব্যাপক মারধর করে।

বরিশাল জেলা বাস মালিক গ্রুপের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কিশোর কুমার দে বলেন, হতে পারে ভুল বোঝাবুঝি হয়েছে। বিষয়টি বিস্তারিত জানি না। খবর নিয়ে দেখব।সুত্র,যুগন্তর

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin