৬ রাতে ১৭ হাজার পরিবারের কাছে পৌছেছে বিসিসি’র খাদ্য সহায়তা

সিটি নিউজ ডেস্ক ‍॥ ব্যতিক্রমী আর গতিশীল কার্যক্রম, পদক্ষেপে নতুনত্ব, বরিশাল সিটি মেয়রের বিশেষ সৃষ্টিশীল বৈশিষ্ট। তার সব আয়োজন ঘিরে থাকে চমক ও আকর্ষনীয়তায়। দলীয় কিংবা ব্যক্তিগত, রাজনৈতিক বা সামাজিক যে কার্যক্রমেই মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহর নামটি জড়িয়ে ছিলো তা সবই ছিলো আকর্ষনীয় ও ভিন্নতায় সমৃদ্ধ। দল ও দলের বাইরে এমন স্বতন্ত্র গুনাবলী বেশ প্রসংশায় ভাসিয়েছে তাকে।

করোনার কারনে ক্ষতিগ্রস্থ অসহায় মানুষদের ত্রান তথা খাদ্য সহায়তা কার্যক্রমেও দেখিয়েছেন তার চমক। ত্রান বিতরন কার্যক্রমের মাত্র ৬ দিনে ১৭ সহ¯্রাধিক পরিবারকে খাদ্য সহায়তা পৌছে দিয়ে অনন্য নজির স্থাপন করেছেন। অনেকটা অসম্ভব কর্ম সম্ভব হয়েছে তার সদিচ্ছা ও গতিশীল বৈশিষ্ট্যে। ৪ ধরনের পন্য পরিমাপ ও প্যাকেটজাত করে প্রতি রাতের আধারে প্রায় ৩ হাজার পরিবারে পৌছে দেওয়ার এই কাজটিকে দুঃসাধ্যই মানছেন অনেকে। কিন্তু এই দুঃসাধ্যকেই মানব সেবার জন্য সাধ্য করে চলছেন মেয়র সাদিক আবদুল্লাহ।


সিটি করপোরেশনের জনসংযোগ বিভাগ থেকে জানা গেছে গত ১১ জুলাই রাত থেকে করোনায় অসহায় হয়ে পড়া নগরীর নি¤œ বৃত্ত ও শ্রমজীবী পরিবারকে সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে খাদ্য সহায়তা প্রদান কার্যক্রম শুরু করা হয়। গতকাল পর্যন্ত মোট ৬ দিন চলেছে এ কার্যক্রম। এই ৬ দিনে ১৭ হাজারেরও বেশী পরিবারের দুয়ারে পৌছে দেওয়া হয়েছে খাদ্য ভর্তি বস্তা। তবে দিনে নয় রাতের আধারেই করা হয়েছে এ কাজ।


ত্রান কার্যক্রম বিভাগের তথ্য অনুযায়ী দিনে গড়ে ৩ হাজার পরিবার কে খাদ্য সামগ্রী পৌছে দেওয়া সম্ভব হয়েছে। যা অনেক ক্ষেত্রে দুঃসাধ্য বটে। নগরীর সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা বলেন খাদ্য সামগ্রীর প্রতিটি বস্তায় দেওয়া হয়েছে ১০ কেজি চাল, ২ কেজি মসুর ডাল, ২ কেজি আলু ও এক কেজি সয়াবিন তেল। যা পরিমাপ করে আলাদা আলাদা ভাবে প্যাকেট করে একটি বস্তায় ভর্তি করে বিতরন করা হয়েছে। বাস্তবিক হিসাবে এটি অনেক সময় সাপেক্ষ ও কঠিনতর কাজ। কিন্তু সিটি মেয়র তা অত্যন্ত দক্ষতা ও বিচক্ষনতার সাথে করে যাচ্ছেন। তারা আরো বলেন পুরো কাজটি (পরিমাপ ও প্যাকেটিং) সুষ্ঠু ভাবে সম্পন্ন করতে তদারকির তাগিদে নিজ বাস ভবনে বসে করার ব্যবস্থা করেছেন।


করপোরেশনের জনসংযোগ কর্মকর্তা স্বপন কুমার দাস বলেন মেয়র মহোদ্বয়ের নির্দেশনায় খাদ্য সহায়তা কার্যক্রম চলমান রয়েছে। গত ৬ দিনে নগরীর সব গুলো কলোনীতে খাদ্য সহায়তা পৌছে দেওয়া হয়েছে। নির্দেশনা পেলে ওয়ার্ড পর্যায়ে এ কার্যক্রম শুরু করা হবে। যতদিন পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হয় ততদিন খাদ্য সহায়তা কার্যক্রম চলমান থাকবে বলে জানান তিনি।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin