১৫ আগষ্টের কালরাতে ঘাতকের হাতে প্রাণ হারান ‘শহীদ সেরনিয়াবাত

সিটি নিউজ ডেস্ক ‍॥ ‘শহীদ সেরনিয়াবাত’ ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্টের কালরাতে ঘাতকের হাতে প্রাণ হারান। ইতিহাসের জঘন্যতম, নৃশংস হত্যাকাণ্ডে নিহত শহীদ সেরনিয়াবাতের প্রতি আমাদের সম্মান এবং শ্রদ্ধা রয়েছে। তিনি ছাত্র ইউনিয়ন করতেন। কিন্তু খুবই সম্প্রতি একটি মহল স্বার্থসিদ্ধির জন্য শহীদ সেরনিয়াবাতকে বিভিন্ন উপাধিতে ভুষিত করার অপচেষ্টায় লিপ্ত।

শহীদ সেরনিয়াবাত কোনোসময়েই মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহন করেন নি, ভারতে বা অন্য কোথাও ট্রেনিং ও নেন নাই। তিনি জীবদ্দশায় তিনি নিজেকে কখনো মুক্তিযোদ্ধা বলে দাবী করেন নি।

আজ এত বছর পর যারা “রনাঙ্গনে শহীদ সেরনিয়াবাদ” লিখে ফায়দা লোটার ধান্ধায় আছেন তাদের কে জিজ্ঞেস করি শহীদ সেরনিয়াবাদ কোথায় মুক্তিযুদ্ধ করেছেন, কোন সেক্টরে আর তার সহযোগী কারা এবং তার অস্ত্র টা কোথায় জমা দিয়েছেন? তিনি ১৯৭৫ সালের ১৪ আগস্ট বিকেলে চাচা আবদুর রব সেরনিয়াবাতের মিন্টু রোডের বাসায় সাথে দেখা করতে যান এবং মিলাদ শেষে তিনি সেখানেই থেকে যান।

তাঁর আর ফেরা হয়নি। কালরাতে ঘাতকের নির্মম বুলেটে বঙ্গবন্ধু পরিবারের অন্য সবার সাথে শহীদ সেরনিয়াবাতও নির্মমভাবে নিহত হন।

আজ ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্টের ৪৬ বছর পরে শহীদ সেরনিয়াবাতের নাম নিয়ে বিভিন্ন মহলে একটি চক্র যেভাবে ফায়দা লোটার চেষ্টা করছে, তাতে করে এই মানুষটির নাম বিতর্কিত না করে থামবে না, যা অত্যন্ত দু:ক্ষজনক।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin