বাকেরগঞ্জে চুরির অপবাদ দিয়ে দুই কিশোরকে নির্যাতনের অভিযোগ

সিটি নিউজ ডেস্ক ‍॥ বরিশালের বাকেরগঞ্জে মিথ্যা চুরির অপবাদ দিয়ে দুই কিশোরকে পেটানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে। আহত ওই কিশোরদের উদ্ধার করে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
আহতরা হলেনবাখেরগঞ্জ উপজেলার -চর দাড়িয়াল সংলগ্ন বাংলাবাজার এলাকার জেলে ইব্রাহিম গাজীর ছেলে সুমন গাজী ও হেলাল হাওলাদারের ছেলে ফয়সাল হাওলাদার।


স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সম্প্রতি স্থানীয় মৃত হারুন ওরফে পুলিশ হারুন ও আবদুল মালেকের বাসায় চুরির ঘটনা ঘটে। এতে সন্দেহভাজন হিসেবে বাংলাবাজার ওই এলাকার ফয়সাল হাওলাদার ও সুমন গাজীর ওপর চুরির দায় চাপানো হয়। চুরির অপবাদ স্বীকার না করার কারনে সোমবার রাতে ২নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মো: দেলোয়ার, টিপু হাওলাদার ওরাহাত আকনের নেতৃত্বে ওই কিশোরদের বাসা থেকে জোড়পূর্বক তুলে নেওয়া হয়। সোমবার রাতে বাংলাবাজার থেকে বামনীকাঠি গ্রামের তুলে নিয়ে মেম্বরসহ স্থানীয় যুবক সুদিপ্ত, রাকিব গাজী, খালেক হাওলাদার, মালেক হাওলাদার,আকাশ সিকদারসহ ৪/৫জন যুবক ওই কিশোরদের মারধর করে।


বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে আহত অবস্থায় চিকিৎসাধীন সুমন গাজী ও ফয়সাল হাওলাদার বলেন, ‘সম্প্রতি আমাদের গ্রামের মৃত হারুন ওরফে পুলিশ হারুনের বাসায় চুরির ঘটনা ঘটে। এঘটনায় সন্দেহভাজন হিসেবে আমাদের দুজনের ওপর চুরির দোষ চাপানো হয়। মিথ্যা চুরির অপবাদ স্বীকার না করার কারনে সোমবার রাতে ২নং ওয়ার্ডের মেম্বর দেলোয়ার নির্দেশে আমাদের জোড়পূর্বক বাংলাবাজার থেকে বামনীকাঠি গ্রামে তুলে নেওয়া হয়। পরে মেম্বর’র সামনে স্থানীয় যুবক রাহাত আকন, সুদিপ্ত, রাকিব গাজী, খালেক হাওলাদার, মালেক হাওলাদার, আকাশ সিকদারসহ ৪/৫জন যুবক আমাদেরকে বেদম মারধর করে।’


কিশোরদের ওপর নির্যাতনের বিষয়ে ২নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য দেলোয়ার হেসেন বলেন ঘটনার রাতে আমি বাসায় খাবার খাচ্ছি ঠিক তখন একটা ফোন আসে যে চুরির ঘটনায় দুইজনকে আটক করেছে স্থানীরা। সেখানে গিয়ে আমি এবং ৩নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মির্জা পৌছানোর আগেই স্থানীয় কয়েকজন ওদেরকে চরথাপ্পর দেয় এটা সত্যি, পরিস্থিতি ঘোলাটে দেখে স্থানীয় সাড়শি পুলিশ ফাড়িঁতে খবর দিলে ওই খানের পুলিশ এবং স্থানীয় সালিশদার রফিক আকন,জাহাঙ্গীর মাল,মোকলেছ মাতবরের সহযোগীতায় চুরির ঘটনায় দুইজনকে ৪০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয় এবং সাক্ষিদের সামনে সাদা কাগজে তাদের সই রাখা হয়।


স্থানীয় দুই যুবক ফয়সাল ও সুমন চোর বা দোষি কিনা?, সাংবাদিকরা ২নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য দেলোয়ারের কাছে যানতে চাইলে তিনি বলেন যাদের বাসা চুরি হইছে তারা তাদের দুইজনকে সনাক্ত করছে। এখানে আমাদের কি করার। এমনকি ওদের পরিবারের লোকজনও ছিলো তখন। যা হইছে সব কিছু তাদের সামনেই। আমার পায়ে পায়ে দোষ।

এবিষয়ে বাকেরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি ) মোঃ আলাউদ্দিন বলেন, ঘটনা শুনেছি, তবে এখনো কোনো অভিযোগ দেইনি কেউ। আভিযোগ পাওয়া গেলে অবশ্যই তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin