গৌরনদী পৌরসভায়,জয়নালের পক্ষে স্থানীয় এমপি,শঙ্কায় অপর প্রার্থীরা

নিজস্ব প্রতিনিধি // বরিশালের রাজধানী ক্ষ্যত গৌরনদী পৌরসভায় মেয়র পদে উপনির্বাচনে প্রার্থী এইচ এম জয়নাল আবেদীনের পক্ষে ভোট চেয়েছেন স্থানীয় সংসদ সদস্য আবুল হাসানাত আবদুল্লাহ।

তিনি নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন করে এক সভায় গৌরনদী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জয়নালকে নিজের প্রার্থী ঘোষণা করেন। এ ছাড়া উপস্থিত নেতা-কর্মীদের হাত উঁচিয়ে ভোট দেওয়ার ওয়াদা করান। আগামীকাল ২৬ জুন বুধবার এই ভোট গ্রহন অনুষ্ঠিত হবে।

বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও কেন্দ্রীয় কমিটির ১ নম্বর সদস্য আবুল হাসানাতি এমপি ‘র সরাসরি এমন অবস্থানের কারণে ভোটে মাঠে লড়াই করা অন্য প্রার্থীদের মধ্যে দলীয় নেতা-কর্মীদের সমর্থন পাওয়া নিয়ে আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। তাঁদের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হচ্ছে, দলীয় প্রতীকবিহীন উন্মুক্ত এ নির্বাচনে একজনকে দলের প্রার্থী ঘোষণা দিয়ে ভোট চাওয়া আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তবিরোধী কাজ। আবুল হাসানাতের এ ঘোষণার পর মূল প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী আলাউদ্দিন ভূঁইয়ার সমর্থকদের ওপর জয়নালের সমর্থকদের হামলার মাত্রা বেড়ে গেছে বলে অভিযোগ পাওয়া যায়।

গত বৃহস্পতিবার দুপুরে আগৈলঝাড়া উপজেলার সেরাল গ্রামে এমপি আবুল হাসানাতের বাড়িতে জেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় জয়নালের জন্য ভোট চান হাসানাত নিজেই। আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালনে জেলা কমিটির প্রস্তুতিসভা ছিল সেটি। সভায় অংশ নেওয়া একাধিক সূত্র জানায়, সভাটি একপর্যায়ে জয়নালের নির্বাচনী সভায় পরিণত হয়। সভা শেষে দলীয় নেতা-কর্মীদের মধ্যাহ্নভোজ করানো হয়।

সভার ভিডিওতে দেখা যায় সংসদ সদস্য আবুল হাসানাতকে ‘জয়নাল আওয়ামী লীগের গৌরনদী উপজেলার সভাপতি। আপনারা যদি সংঘবদ্ধভাবে কাজ করেন তাহলে ইনশা আল্লাহ গৌরনদীতে জয়নাল জয়লাভ করবেন। আপনারা এই ওয়াদাটা করবেন আল্লাহর ওয়াস্তে আমার এই বৃদ্ধ বয়সে। আপনারা সবাই মিলে জয়নালের জন্য কাজ করবেন।’

এ বিষয়ে জানতে হাসানাতকে ফোন দেওয়া হলে তিনি রিসিভ করেননি। তবে প্রার্থী জয়নাল বলেন, তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী আলাউদ্দিন একসময় বিএনপি করতেন। আবার আওয়ামী লীগে আসছেন। তিনি বহুরূপী নেতা। দলের সভায় ভোট চাওয়া প্রসঙ্গে জয়নাল বলেন, ‘সভায় আমি উপস্থিত ছিলাম কিন্তু কোনো বক্তব্য দিইনি। আমার পক্ষে যদি কেউ ভোট চান সেটা তো আমার দেখার বিষয় নয়।’

এ নিয়ে কথা হলে সভায় উপস্থিত থাকা বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তালুকদার মো. ইউনুস বলেন, ‘গৌরনদী পৌর নির্বাচনে সবাই তো আওয়ামী লীগ। আওয়ামী লীগ তো সবদিকে আছে। কারও পক্ষে তো দল মাঠে ভোট চায়নি। প্রস্তুতিসভায় আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী সফল করা নিয়ে আলোচনা হয়েছে, নির্বাচন নিয়ে কথা হয়নি। বিচ্ছিন্নভাবে কে কী বলল, তা বলে লাভ নেই।’

এদিকে প্রার্থী আলাউদ্দিনের ছেলে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সম্পাদক অনিক ভূঁইয়া অভিযোগ করেছেন, আবুল হাসানাত আবদুল্লাহ্ চাচার ওই ঘোষণার পর জয়নালের সমর্থকদের হামলার মাত্রা বেড়ে গেছে। গত শুক্রবার রাতে ১ নম্বর ওয়ার্ডে আলাউদ্দিনের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আহ্বায়ক বুলবুল দেওয়ানের বসতবাড়িতে হামলা করা হয়। এর আগে সন্ধ্যায় কাশেমাবাদ এলাকায় কর্মী জালালকে মারধর করা হয়। গত শনিবার টর্কি এলাকায় নির্বাচনী প্রচারে বাধা দেওয়া হয়।

এসকল বিষেয় নিয়ে গৌরনদীতে সুষ্ঠু ভোটের দাবিতে নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ দেয়া হয়েছে। সুত্র, আজকের পত্রিকা

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin