বরিশালে ভুয়া আইনজীবী আটক

সিটি নিউজ ডেস্ক :: বরিশাল আদালত চত্তরের আইনজীবী না হয়েও মামলা পরিচালনা করতে গিয়ে বরিশাল আদালত চত্তর থেকে ধরা খেলেন কে এম জাহাঙ্গীর আলম নামের এক প্রতারক। আজ সোমবার (৮ জুলাই) দুপুর দেড়টার দিকে তাকে জজকোর্ট এলাকা থেকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেন বরিশাল জেলা আইনজীবী সমিতির সদস্যরা।

জানা যায়- মুলাদি উপজেলার বাসিন্দা বরিশালের ব্যবসায়ী আবুল কালামের সাথে এ্যাডভোকেট হিসেবে পরিচয় হয় ভুয়া আইনজীবী কে এম জাহাঙ্গীরের। এর পর থেকে কালামের বোন মুন্নির জমি সংক্রান্ত মামলা পরিচালনা করার জন্য একে একে ২৭ হাজার টাকা নেয় জাহাঙ্গীর। সর্বশেষ আজ সকালে ১০ হাজার টাকা নিয়ে কালামের ভাগ্নি মিতুকে একা আদালতে আসতে বললে জাহাঙ্গীরের বিষয়ে সন্দেহ হয় কালাম ও তার বোন মুন্নির। পরে তারা মিতুকে টাকা নিয়ে পাঠিয়ে গোপনে ঘটনা প্রত্যক্ষ করেন। এক পর্যায়ে তারা বুঝতে পারে জাহাঙ্গির একজন প্রতারক। এরপর তারা আইনজীবীদের সহয়তায় জাহাঙ্গীরকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেন। এ সময় তার কাছ থেকে বিভিন্ন দপ্তরের ভুয়া আইডি কার্ড ও জেলা আইনজীবী সমিতির সিল উদ্ধার করা হয়।

এ বিষয়ে আবুল কালাম জানান- আমার বোন মুন্নির জমি সংক্রান্ত মামলা পরিচালনা করার জন্য ভুয়া এ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর আমাদের কাছ থেকে ২৭ হাজার টাকা নিয়েছে। টাকা নিলেও তিনি কোন কাজ করতে না পারায় আমাদের সন্দেহ হলে আইনজীবীদের সহয়তার তাকে আটক করে পুলিশে দেই। আমি জাহাঙ্গীরের বিচার চাই এবং আমার বোনের টাকা ফেরত চাই।

আবুল কালামের বোন মুন্নি বলেন- জাহাঙ্গীর আইনজীবী পরিচয় দিয়ে জামি সংক্রান্ত মামলা পরিচালনা করার জন্য আমাদের কাছ থেকে প্রতারণার মাধ্যমে ২৭ হাজার টাকা নেয়। আমি আমার টাকা ফেরত চাই এবং জাহাঙ্গীরের বিচার চাই। ভবিষ্যতে যেন আর কারও সাথে এমন প্রতারণা করতে না পারে।

এ বিষয়ে বরিশাল জেলা আইনজীবী সমিতিরি সভাপতি গোলাম কবির বাদল জানান- কালাম ও তার বোন মুন্নির জাহাঙ্গীরকে সন্দেহ হলে আমার রুমে নিয়ে আসে। এ সময় আমি জাহাঙ্গীরের পরিচয়পত্র দেখতে চাইলে এবং সনদ নম্বর চাইলে তিনি কোন কিছুই দেখাতে পারেন নি। তার কাছে বিভিন্ন দপ্তরের ভুয়া আইডি কার্ড ও জেলা আইনজীবী সমিতির সিল পাওয়া গেলে তাকে কোতায়ালী থানা পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হয়। এ ধরনের ভুয়া আইনজীবীদের থেকে সাবধান থাকার পরামর্শও দেন তিনি।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin